রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৫:০২ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
Logo বেইজিংয়ে চীনা ও রুশ প্রেসিডেন্টের যৌথ বিবৃতি Logo চীন-রাশিয়া সংস্কৃতিক বর্ষ’: চীন-রাশিয়া কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ৭৫তম বার্ষিকী Logo আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব হলেন রামগঞ্জের কৃতি সন্তান আবদুর রহমান খাঁন Logo চীন ও রুশ প্রেসিডেন্ট দ্বয়ের মধ্যে বৈঠক Logo আমাদের ‘মহান খাদ্যের ধারণা’ গড়ে তুলতে হবে;প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং Logo ভারতীয় সন্ন্যাসীদের সফর চীন-ভারতের বৌদ্ধ বৃত্তের মধ্যে বন্ধুত্বকে উন্নীত করবে Logo চাটখিলে গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার Logo কুয়াংতোংয়ে উদ্ধারকাজে সর্বাত্মক প্রচেষ্টার আহ্বান জানান প্রেসিডেন্ট সি Logo প্রেসিডেন্ট সি’র চিঠি চীন-সার্বিয়া বন্ধুত্বে প্রাণশক্তি যোগাতে উৎসাহিত করে Logo ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোর সঙ্গে সি চিন পিং বৈঠক করবেন
নোটিশঃ
যে কোন বিভাগে প্রতি জেলা, থানা/উপজেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ‘bdpressnews.com ’ জাতীয় পত্রিকায় সাংবাদিক নিয়োগ ২০২৩ চলছে। বিগত ১ বছর ধরে ‘bdpressnews.com’ অনলাইন সংস্করণ পাঠক সমাজে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। পাঠকের সংখ্যায় প্রতিনিয়ত যোগ হচ্ছে নানা শ্রেণি-পেশার হাজারো মানুষ। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে প্রতিষ্ঠানটিতে কাজ করছে তরুণ, অভিজ্ঞ ও আন্তরিক সংবাদকর্মীরা। এরই ধারাবাহিকতায় ‘bdpressnews.com‘ পত্রিকায় নিয়োগ প্রক্রিয়ার এ ধাপ

আমাদের ‘মহান খাদ্যের ধারণা’ গড়ে তুলতে হবে;প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং

ছাই ইউয়ে মুক্তা: / ১৬ Time View
Update : মঙ্গলবার, ১৪ মে, ২০২৪, ১০:৩২ অপরাহ্ন

চীনের চলতি বছরের কেন্দ্রীয় এক নম্বর দলিলপত্রে বলা হয়েছে, ‘মহান কৃষি ও মহান খাদ্য ধারণা’ গড়ে তুলতে হবে এবং একাধিক পদ্ধতিতে খাদ্য উৎপাদন করতে হবে; খাদ্যের উৎসের সংখ্যা বাড়াতে হবে।

সম্প্রতি চীনা প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং হুনান প্রদেশ পরিদর্শনকালে পুনরায় ‘মহান কৃষি ও মহান খাদ্য ধারণা’ বজায় রাখার কথা জোর দিয়ে বলেছেন। তিনি বলেন, ইতিবাচকভাবে বৈশিষ্ট্যময় কৃষি ও কৃষিপণ্যের উৎপাদন উন্নত করতে এবং কৃষির শিল্পায়নের মান উন্নত করতে হবে। প্রশ্ন হচ্ছে: ‘মহান খাদ্য ধারণা’ মানে কী? আসলে, ফুচিয়ান প্রদেশে কাজ করার সময় সি চিন পিং নিজের লেখা ‘দারিদ্র্যবিমোচন’ শীর্ষক একটি গ্রন্থে এ ধারণার কথা প্রথম উল্লেখ করেন। 

‘মহান খাদ্য ধারণা’-তে ধান ও গম ছাড়াও, সবজি ও ফল অন্তর্ভুক্ত আছে। এছাড়া, মাংস, ডিম, দুধ ও মাছসহ বিভিন্ন পশুখাদ্য এবং অণুজীব, সিন্থেটিক পদার্থ ও অন্যান্য ভোজ্য খাবার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। বস্তুত, যে কোনো মানুষের স্বাভাবিক জীবনের চাহিদা মেটাতে পারে ও মানুষের খাওয়ার উপযোগী সবকিছুই খাদ্য বিভাগের অন্তর্ভুক্ত।

চীনা জনগণের জীবনযাত্রার মান ক্রমাগত উন্নত হচ্ছে। চীনা মানুষ প্রধান খাদ্যের ব্যবহার কমাচ্ছে এবং অ-প্রধান খাদ্যের গ্রহণ বৃদ্ধি করছে। পাশাপাশি, খাদ্যের ধরন ও পুষ্টির সমন্বয়ের বৈচিত্র্যের দিকেও তাঁরা মনোযোগ দিচ্ছেন। আগে যে খাবারগুলোকে আমরা ‘নন-স্ট্যাপল ফুড’ বা ‘অ-প্রধান খাদ্য’ বলতাম, তা আমাদের প্রধান খাবারে পরিণত হয়েছে। অতীতে খাদ্য উৎপদানের প্রধান উৎস ছিল আবাদি জমি। আর এখন, ১২.৭ কোটি হেক্টর আবাদী জমি ছাড়াও, ২০ কোটি হেক্টর বন, ৪০ কোটি হেক্টর তৃণভূমি ও ৩০ লাখ বর্গকিলোমিটারের সমুদ্রাঞ্চল থেকে বিভিন্ন ধরনের খাবার উৎপাদিত হচ্ছে।

বর্তমানে চীনে খাদ্যশস্যের উৎপাদনের পরিমাণ ইতিহাসের সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে। চাষের জমি ও জলজ সম্পদের ব্যবহারের ওপর আরও কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। জমির আয়তন সম্প্রসারণের মাধ্যমে উৎপাদনের সুযোগ কম। তাই, সীমাবদ্ধ জমিতে ফলন বৃদ্ধি শস্য উৎপাদন বৃদ্ধির একটি গুরুত্বপূর্ণ উপায় হয়ে উঠেছে। চলতি বছর ব্যাপকভাবে শস্য উৎপাদনের পরিমাণ বাড়ানোর চেষ্টা করছে চীন।

খাদ্য সরবরাহের ক্ষেত্রে বৈচিত্র্য এলে জাতীয় খাদ্য নিরাপত্তার ভিত্তি শক্তিশালী হতে পারে। চীনা প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং বলেন, চীন ১৪০ কোটি জনসংখ্যার একটি বড় দেশ। খাবারের সমস্যা সমাধান ও খাদ্যশস্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের ‘মহান খাদ্যের ধারণা’ গড়ে তুলতে হবে; স্থল ও সমুদ্র থেকে খাদ্য সংগ্রহ করতে হবে।

এদিকে খাদ্য উৎপাদন খাতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন বাড়াতে হবে। ঐতিহ্যবাহী কৃষি একটি সম্পদ এবং শ্রম-নিবিড় শিল্প। উত্পাদন-পদ্ধতি, যা নিবিড়ভাবে সম্পদ ও পরিবেশকে শোষণ করে, প্রায়ই টেকসই হয় না। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির মাধ্যমে মানবসমাজের চাহিদা ও সীমিত প্রাকৃতিক সম্পদের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে। প্রজনন, শিল্প ও বিভিন্ন মানদণ্ড নিয়ে গঠিত ব্যবস্থা ইতোমধ্যেই গড়ে তোলা হয়েছে। কৃষি ও খাদ্য খাতে জৈবপ্রযুক্তির প্রয়োগ এগিয়ে নেওয়া হবে। ঐতিহ্যবাহী খাদ্য সরবরাহ জোরদার করতে হবে, যাতে ‘মহান খাদ্য ধারণা’ বাস্তবায়ন করা যায়।

‘মহান খাদ্য ধারণা’ অনুযায়ী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নের মাধ্যমে জল, ভূমি সম্পদ ‌ও শ্রমের একক শেকল থেকে মুক্তি পেতে হবে। আমাদের সবুজ ও উচ্চ মানের উন্নয়ন বজায় রাখতে হবে, যাতে টেকসই খাবারের সরবরাহ বাস্তবায়ন করা যায়।

১৪০ কোটি মানুষের খাবার নিশ্চিত করা হলো একটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু। আমাদের অবশ্যই বৃহত্তর দৃষ্টিকোণ থেকে খাদ্য নিরাপত্তার মর্ম বুঝতে হবে এবং উপলব্ধি করতে হবে। খাদ্যের বৈচিত্র্যে বাড়াতে হবে। চীনা বৈশিষ্ট্যময় খাদ্য-নিরাপত্তা পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হবে।
সূত্র: মুক্তা, চায়না মিডিয়া গ্রুপ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design & Developed by : BD IT HOST