শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
Logo চতুর্থ চীন আন্তর্জাতিক ভোগ্যপণ্য মেলা চলবে ১৮ এপ্রিল Logo ২১৫ টি দেশ ক্যান্টন মেলা কুয়াং চৌতে নিবন্ধন করেছেন Logo রামগঞ্জে নানান আয়োজনে পহেলা বৈশাখ পালিত Logo সেপটিক ট্যাংকে নেমে প্রাণ গেল বাড়ির মালিকসহ পরিচ্ছন্নতাকর্মীর Logo শোক সংবাদ: বীর মুক্তিযোদ্ধা লিয়াকত আলী পাইনের ইন্তেকাল Logo দখলকৃত জায়গা ছেড়ে দিতে বলায় দুই ভাইকে মারধর, মারাত্মক জখম Logo চীন- ভিয়েতনাম একে অপরের ‘কমরেড ও ভাই’- প্রেসিডেন্ট সি Logo জাতিসংঘের মৌলিক নীতিকে চীন বিভিন্ন ইস্যু মোকাবিলার ভিত্তি বলে বিশ্বাস করে Logo ইইউ ব্র্যান্ডি নিয়ে চীনের এন্টি-ডাম্পিং তদন্ত দেশীয় শিল্পের আবেদনের প্রেক্ষাপটে শুরু হয় Logo রামগঞ্জে সততা ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার বিতরণ
নোটিশঃ
যে কোন বিভাগে প্রতি জেলা, থানা/উপজেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ‘bdpressnews.com ’ জাতীয় পত্রিকায় সাংবাদিক নিয়োগ ২০২৩ চলছে। বিগত ১ বছর ধরে ‘bdpressnews.com’ অনলাইন সংস্করণ পাঠক সমাজে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। পাঠকের সংখ্যায় প্রতিনিয়ত যোগ হচ্ছে নানা শ্রেণি-পেশার হাজারো মানুষ। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে প্রতিষ্ঠানটিতে কাজ করছে তরুণ, অভিজ্ঞ ও আন্তরিক সংবাদকর্মীরা। এরই ধারাবাহিকতায় ‘bdpressnews.com‘ পত্রিকায় নিয়োগ প্রক্রিয়ার এ ধাপ

চীনের চ্য চিয়াং প্রদেশের বাড়ীগুলো উদ্যানে পরিনত হয়েছে

শুয়েই ফেই ফেই: / ৪৯ Time View
Update : শুক্রবার, ১৬ জুন, ২০২৩, ৬:৫৩ অপরাহ্ন

শুয়েই ফেই ফেই:
২০০৩ সালের ৫ জুন চ্য চিয়াং প্রদেশে ‘হাজার দৃষ্টান্তমূলক গ্রাম এবং দশ হাজার গ্রাম পুনর্নির্মাণের’ প্রকল্প চালু করা হয়। এরপর বিশ বছরে এ প্রকল্পটি চ্য চিয়াং প্রদেশের গ্রামগুলোকে সুন্দর ও টেকসইভাবে গড়ে তুলেছে। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে এই প্রকল্পটি জাতিসংঘের সর্বোচ্চ পরিবেশ পুরস্কার- চ্যাম্পিয়ন্স অব দি আর্থ (Champions of the Earth Award) লাভ করে। আজ এই প্রকল্প এবং চীনের গ্রামের বর্তমান অবস্থা নিয়ে আপনাদের সঙ্গে কথা বলবো।
এখন চীনের দক্ষিণাঞ্চলের শহরের সবচেয়ে সুন্দর সময় শুরু হয়েছে। চীনের চ্য চিয়াং প্রদেশের সবখানে দেখা যায় প্রাণবন্ত দৃশ্য।
২০০৩ সালে চ্য চিয়াং প্রদেশে ‘হাজার দৃষ্টান্তমূলক গ্রাম এবং দশ হাজার গ্রাম পুনর্নির্মাণের’ প্রকল্প চালু হয়। পুরো প্রদেশ থেকে দশ হাজার গ্রাম বাছাই করে সুন্দরভাবে পুনর্নির্মাণ করার মাধ্যমে ১ হাজার গ্রাম ‘সার্বিক সচ্ছল গ্রামের দৃষ্টান্ত’ হিসেবে উপস্থাপন করার কাজ হাতে নেওয়া হয়।
যে বিষয়ে জনগণের আগ্রহ সবচেয়ে বেশি, সেসব বিষয় থেকে শুরু করে, দূষিত পানির সমস্যা সার্বিকভাবে সমাধান করা হয়, ‘আবর্জনা বিপ্লব’ প্রকল্পের মাধ্যমে গ্রামের আবর্জনা সুবিন্যস্ত করা হয়। শৌচাগার তৈরি করা হয় এবং সুন্দর গ্রামীণ কাঠামো সার্বিকভাবে গড়ে তোলা হয়।
পাহাড়গুলো আরো সবুজ হয়ে ওঠে, পানি আরো পরিচ্ছন্ন হয়, আকাশ আরো নীল হয়। সে ধারাবাহিকতায় সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চ্য চিয়াং প্রদেশের গ্রামের আবাসিক পরিবেশ দীর্ঘসময় ধরে দেশের শীর্ষস্থানে থেকেছে। এখানে বনভূমির বর্তমান আয়তন ৬১ শতাংশ।
বড় আকারের পশুপালন কারখানা বন্ধ করা, অবৈধ স্থাপনাগুলো ভেঙে দেওয়া, কৃষকের বাড়িঘর পুনর্নির্মাণ করা ইত্যাদি পদক্ষেপের মাধ্যমে পরিবেশ সংরক্ষণের লক্ষ্য বাস্তবায়ন করা হয়। এভাবে গ্রামগুলো ধীরে ধীরে উন্নয়নের নতুন পথে এগিয়েছে।
এখন বাড়ি যেন উদ্যানে পরিণত হয়েছে, গ্রাম এখন দর্শনীয় স্থানে পরিণত হয়েছে, কৃষকের বাড়িঘর হোমস্টেতে পরিণত হয়েছে। এভাবে প্রাকৃতিক সম্পদের উত্তম ব্যবহার করে আয়-রোজগার করছেন স্থানীয়রা।
গ্রামের পুনর্নির্মাণ প্রকল্প চালু হওয়ার বিশ বছরে চ্য চিয়াং প্রদেশ সবার আগে তা ভালোভাবে বাস্তবায়ন করে। গ্রামের আবাসিক পরিবেশ উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে সবুজ শিল্প উন্নত হয়েছে। গ্রামীণ শিল্পের উন্নয়ন এবং কৃষকের ধনী হওয়ার পথ সুগম হয়েছে।
সর্বশেষ আরেকটি সূচক হল, শহর ও গ্রামের মানুষদের আয়ের ব্যবধান আরো কমেছে। এই হার এখন ১.৯ হয়েছে। শহর ও গ্রামের মানুষের আয়ের ব্যবধান গ্রাম পুনর্নির্মাণের মাধ্যমে আরো কমে এসেছে। আসলে, এই সূচক টানা দশ বছর ধরে কমছে; যা চ্য চিয়াং প্রদেশের উচ্চ মানের উন্নয়ন এবং যৌথভাবে ধনী হওয়ার ক্ষেত্রে দৃষ্টান্তমূলক অঞ্চল নির্মাণের দৃঢ় ভিত্তি স্থাপন করেছে।
আসলে চীনে গ্রামের পরিবেশের উন্নয়নের কাজ কখনই থেমে যায় নি। ২০২০ সালের শেষ নাগাদ, চীন সরকার বিশেষভাবে ২৫.৮ বিলিয়ন ইউয়ান বরাদ্দ দেয়। এই অর্থ দিয়ে গ্রামের দূষিত পানি মোকাবিলা, আবর্জনা শ্রেণীবিন্যাস করা, পশুপালন শিল্পের দূষণ মোকাবিলাকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন গ্রামের পরিবেশ উন্নত করা হয়। এতে ১ লাখ ৯৫ হাজার গ্রাম লাভবান হয়েছে। বর্তমানে চীনের বিভিন্ন গ্রামে চ্য চিয়াং প্রদেশের ‘হাজার দৃষ্টান্তমূলক গ্রাম এবং দশ হাজার গ্রাম পুনর্নির্মাণ’ প্রকল্পের উৎসাহে, প্রাকৃতিক সংরক্ষণ চেষ্টা চালু হয়েছে। মানুষ প্রকৃতি সংরক্ষণ করলে প্রকৃতিও মানবজাতিকে প্রতিদান দেয়। প্রাকৃতিক অর্থনীতি এখন চীনের অসংখ্য গ্রামে কৃষকদের ধনী হওয়ার কার্যকর পদ্ধতিতে পরিণত হয়েছে।
সূত্র: চায়না মিডিয়া গ্রুপ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design & Developed by : BD IT HOST