শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৫৩ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
Logo দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের উন্নয়নকে অগ্রসর করতে ইন্দোনশিয়া সফরে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী Logo ১৯২৪ কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ফা’ইউয়ান মন্দির পরিদর্শন করেন Logo শুরু হয়েছে বেইজিং আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব Logo চীনা প্রধানমন্ত্রীর সাথে বেইজিংয়ের মহাগণভবনে জার্মান চ্যান্সেলরের বৈঠক Logo চীন সফর করলেন জার্মানির চ্যান্সেলর ওলাফ শোলজ Logo চতুর্থ চীন আন্তর্জাতিক ভোগ্যপণ্য মেলা চলবে ১৮ এপ্রিল Logo ২১৫ টি দেশ ক্যান্টন মেলা কুয়াং চৌতে নিবন্ধন করেছেন Logo রামগঞ্জে নানান আয়োজনে পহেলা বৈশাখ পালিত Logo সেপটিক ট্যাংকে নেমে প্রাণ গেল বাড়ির মালিকসহ পরিচ্ছন্নতাকর্মীর Logo শোক সংবাদ: বীর মুক্তিযোদ্ধা লিয়াকত আলী পাইনের ইন্তেকাল
নোটিশঃ
যে কোন বিভাগে প্রতি জেলা, থানা/উপজেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ‘bdpressnews.com ’ জাতীয় পত্রিকায় সাংবাদিক নিয়োগ ২০২৩ চলছে। বিগত ১ বছর ধরে ‘bdpressnews.com’ অনলাইন সংস্করণ পাঠক সমাজে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। পাঠকের সংখ্যায় প্রতিনিয়ত যোগ হচ্ছে নানা শ্রেণি-পেশার হাজারো মানুষ। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে প্রতিষ্ঠানটিতে কাজ করছে তরুণ, অভিজ্ঞ ও আন্তরিক সংবাদকর্মীরা। এরই ধারাবাহিকতায় ‘bdpressnews.com‘ পত্রিকায় নিয়োগ প্রক্রিয়ার এ ধাপ

“ছি মিন ইয়াও শু” প্রাচীন কৃষি ভিত্তিক সমাজ জীবনের একটি বিশ্বকোষ

ইয়াং ওয়েই মিং,বেইজিং: / ৬১ Time View
Update : শুক্রবার, ১২ মে, ২০২৩, ৪:৪১ অপরাহ্ন

ইয়াং ওয়েই মিং,বেইজিং:
কৃষি একটি দেশের ভিত্তি এবং খাদ্য মানুষের মৌলিক চাহিদা। চীনের বিস্তীর্ণ ভূমিতে দীর্ঘ ও গভীর কৃষিসংস্কৃতির জন্ম হয়। অনেক কৃষিবিদ ক্রমাগত উৎপাদন অভিজ্ঞতার সারসংক্ষেপ করেছেন এবং প্রচুর কৃষি ক্লাসিক বই রচনা করেছেন। প্রাচীন চীনের একজন অসামান্য কৃষিবিদ জিয়া সি শিয়ে-এর লেখা “ছি মিন ইয়া শু”-এর দশটি খণ্ড এবং নিরানব্বইটি অধ্যায় রয়েছে। যেখানে উত্তর ওয়েই রাজবংশের আগে দুই শতাধিক প্রাচীন বই ও নথিপত্রের উদ্ধৃতি সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রাচীনকালে কৃষিসংক্রান্ত সব কার্যক্রমের বিষয়গুলো এতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেই সময়ে কৃষির বৈজ্ঞানিক জ্ঞানের সবচেয়ে ব্যাপক ও পদ্ধতিগত সংকলন ছিল এটি। এর যুগ-যুগান্তরের তাৎপর্য রয়েছে এবং পরবর্তী প্রজন্মের জন্য একটি কৃষি বইয়ের মডেল হিসাবে বিবেচিত হয়।
“ছি মিন” সাধারণত মানুষকে বোঝায়। “ইয়াওশু” গুরুত্বপূর্ণ উৎপাদন কৌশল এবং জীবিকা নির্বাহের পদ্ধতিগুলোকে বোঝায়। জিয়া সি শিয়ে “ছি মিন ইয়াও শু”-এর ভূমিকায় লিখেছেন: “起自耕农,终于醯醢,资生之业,靡不毕书,号曰齐民要术”, অর্থাৎ চাষের কৌশল থেকে সয়া সস ও ভিনেগার পর্যন্ত উপজাত কৃষি উৎপাদন, এটি মানুষের জীবিকার সাথে সম্পর্কিত যে-কোনো বিষয় তার বইয়ে লিপিবদ্ধ রয়েছে।
“ছি মিন ইয়াও শু”-এ অনেক উন্নত কৃষিচেতনা অনুর্ভুক্ত রয়েছে। যেমন, “যদি আবহাওয়া ও জমির অবস্থা বিবেচনায় রেখে চাষবাস করেন, তবে আপনি কম পরিশ্রম করেন বেশি ফসল পাবেন”। এতে প্রতিফলিত হয় যে, “ছি মিন ইয়াও শু”-এর সময়ই এটা বোঝা গিয়েছিল যে, কৃষির উন্নয়ন চাইলে পরিবেশ রক্ষা করতে হবে। এটি টেকসই কৃষি উন্নয়নের ধারণা, যা সমগ্র বিশ্ব সমর্থন করে। এ ছাড়া, বইটিতে অনেকগুলি ব্যবহারিক উৎপাদন-প্রযুক্তিও রেকর্ড করা হয়েছে, যা এখনও চীনে ব্যবহৃত হচ্ছে।
“প্রাচীন চীনা কৃষির বিশ্বকোষ” হিসাবে পরিচিত “ছি মিন ইয়াও শু” অনেক পাঠকের চোখে “খাদ্যের বই”। কারণ, এতে প্রায় ৩০০ ধরণের খাবার এবং তা তৈরীর পদ্ধতি বর্ণিত হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, বইটিতে রেকর্ড করা “চিয়ে বিং” বর্তমানের দুধ ও বিস্কুটের সমতুল্য। “ছাও চি জি” হলো আজকের বাড়িতে রান্না করা ডিমভাজি। জিয়া সি শিয়ে, যিনি এইসব প্রাণবন্ত রেকর্ড রেখে গেছেন, তিনি এমন একজন ব্যক্তি, যিনি জীবনকে ভালোবাসেন। তিনি আশা করেন যে, মানুষ অনেককিছু খেতে পারে। “ছি মিন ইয়াও শু” পড়ার মাধ্যমে শ্রোতারা হাজার হাজার বছর ধরে ভূমিতে শিকড় গাঁথতে, কৃষিকে গুরুত্ব দিতে এবং একটি সরল ও সুন্দর জীবনযাপনের জন্য চীনা জাতির দৃষ্টিভঙ্গি দেখতে পাবেন।
ছাগলের দুধ এবং পনির, “ছি মিন ইয়াও শু”-তে একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। দুগ্ধজাত দ্রব্য তৈরি করা উত্তর চীনের জনগণের একটি দৈনন্দিন অভ্যাস এবং “ছি মিন ইয়াও শু”-এ পনির তৈরির অনেকগুলো রেসিপি রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, জুন এবং জুলাই মাসে এক ধরনের পনির তৈরি করা হয়। দুধকে প্রথমে সূর্যের তাপে সিদ্ধ করা হয়। পনিরের উপর দুধের সর তৈরি হলে, সেটি সংগ্রহ করা হয়; তারপর আবার কিছুক্ষণ সূর্যের তাপে সেদ্ধ করে পরের সরটি উঠিয়ে নেওয়া হয়। এভাবে করতে থাকলে একসময় আর সর তৈরি হবে না। তখন তা আগুনের সিদ্ধ করে চিজ বা পনির তৈরি করে নিতে হয়।
“ছি মিন ইয়াও শু” চীনা সংস্কৃতির গর্ব এবং বিশ্ব সংস্কৃতির একটি মূল্যবান সম্পদ। থাং রাজবংশ আমলে, এটি জাপান ও কোরিয়ান উপদ্বীপে ছড়িয়ে পড়ে এবং তারপর অষ্টাদশ শতাব্দীতে ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ে। এটি অনেক ভাষায় অনূদিত হয়েছে, যা চীনা বৈশিষ্ট্যের সাথে কৃষি চিন্তাভাবনা ও ধারণাগুলোকে মূর্ত করে এবং বিশ্ব কৃষিবিদ্যার উন্নয়নের সর্বোচ্চ স্তরের প্রতিনিধিত্ব করে। এটি আরও দেখায় যে, কৃষি সংস্কৃতি চীনের একটি নিরবচ্ছিন্ন সংস্কৃতি, এবং চীনা জনগণ সর্বদাই ইতিহাস লিখেছে। “একটি শক্তিশালী দেশকে প্রথমে তার কৃষিকে শক্তিশালী করতে হবে; একটি শক্তিশালী কৃষি দেশ শক্তিশালী দেশ হতে পারে।” কৃষি আমাদের সাংস্কৃতিক ভিত্তি। কথা বলে ‘চীনা জনগণের ভাতের বাটি অবশ্যই চীনাদের হাতে থাকতে হবে’।
“ছি মিন ইয়াও শু” প্রাচীন কৃষিভিত্তিকিক সমাজজীবনের একটি বিশ্বকোষ হওয়ার যোগ্য। তার মাধ্যমে আমরা সেই বছরগুলোতে প্রাচীনদের অনুপ্রাণিত অসাধারণ জ্ঞানও অনুভব করতে পারি, যখন খাদ্য খুব বেশি পর্যাপ্ত ছিল না, সেই সাথে কৃষিকে গুরুত্ব দেওয়ার এবং একটি উন্নত জীবন অনুসরণ করার আকাঙ্খাও ছিল।
সূত্র: চায়না মিডিয়া গ্রুপ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design & Developed by : BD IT HOST